ধর্মিয় আলোচনা

আল্লাহ আমাদের সবাইকে সুন্দর ভাবে সালাত আদায়

সালাতে আমার মন বসে না
➖➖➖➖➖💠💠➖➖➖➖➖

যে মানুষটা নিজের কাজে খুব ধীরস্থির, খুব ভেবেচিন্তে, গুছিয়ে কাজ করতে ভালােবাসে, মসজিদে এলে সেই মানুষটাও কেমন যেন তাড়াহুড়াে শুরু করে।

দুনিয়ার কাজকর্মে যিনি ‘মান ধরে রাখতে খুবই তৎপর, মসজিদে এলে তাকেও খুব অগােছালাে পাওয়া যায়। খুব অদ্ভুত আমাদের আচরণ!

আমরা আমাদের ব্যবসায়ে বারাকাহ চাই, আমাদের হায়াত বৃদ্ধি হােক চাই, আমাদের বিপদ দূর হােক চাই, আমরা চাই যে, আমাদের ধনসম্পদ উত্তরােত্তর বৃদ্ধি পাক।

কিন্তু, এই যে ব্যবসায়ে বারাকাহ, হায়াত বৃদ্ধি, বিপদ দূরীকরণ কিংবা ধনসম্পদের উপর্যুপরি বৃদ্ধি পাওয়া—এসবকিছুই যার হাতে, যার নিয়ন্ত্রণে এবং যার অধীন—সেই মহান রবের সান্নিধ্য পাবার সবচেয়ে কার্যকরী মূহূর্ত হচ্ছে সালাত। অথচ, সেই সালাতেই আমাদের রাজ্যের উদাসীনতা।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, সালাত জিনিসটা যেন আমাদের ওপর খুব জোর করে চাপিয়ে দেওয়া কোনাে বস্তু। কোনাে রকমে দুটো সিজদা দিয়ে কাজ সারতে পারলেই যেন আমরা দিব্যি বেঁচে যাই।

দুনিয়ায় খ্যাতি লাভ করেছে এমন কিছু মানুষের সান্নিধ্যে যাওয়ার অল্প কিছু সুযােগ আমার হয়েছে। দেখেছি, তারা যখন কথা বলেন তখন তাদের আশপাশে থাকা মানুষগুলাে গভীর মনােযােগ আর স্থিরতা নিয়েই তাদের কথা শুনতে থাকে। কোনাে অক্ষর, কোনাে শব্দ, কোনাে বাক্য তারা বাদ দিতে চায় না। হৃদয়-মননে যেন। সবটুকু গেঁথে নিতে পারলেই ভক্তকুল ধন্য হয়।

দুনিয়ার সেলিব্রিটিদের সান্নিধ্য আর তাদের কথা শােনার জন্য আমাদের ব্যাকুলতার কমতি নেই।

অথচ, যিনি রাল। অনীহা, অনিচ্ছা, অনাগ্রহ। সালাতে দাঁড়ালেই আমাদের মন উথালপাথাল করে। ওঠে। অফিসে রেখে আসা আমার অর্ধসমাপ্ত হিশেব, মিস করে যাওয়া বিকেলের । অ্যাপয়েন্টমেন্ট, রাতের খােশগল্পের আড়া—সবকিছুই আমাদের হৃদয়পটে ভেসে। উঠতে থাকে। বিক্ষিপ্ত মন নিয়ে আমরা তখন যন্ত্রের মতন উঠবস করি মাত্র।

এই অনীহা, অনাগ্রহের কারণ হলাে, আমরা সালাতকে কেবল আনুষ্ঠানিক “ইবাদত মনে করি। চাপিয়ে দেওয়া কোনাে বােঝা মনে করি বলেই সালাতে আমাদের মন বিক্ষিপ্ত হয়ে পড়ে।

যখনই আমরা সালাতকে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার সাথে যােগাযােগের মাধ্যম মনে করতে পারব, যখনই আমরা বুঝতে পারব যে, সালাতই আল্লাহর নৈকট্য লাভের সবচেয়ে কার্যকরী মাধ্যম। যখন মনের মধ্যে আল্লাহর জন্য অপরিসীম ভালােবাসা জমা করতে পারব, তখনই আমাদের সালাতগুলাে মধুময় হয়ে উঠবে।

সালাত হচ্ছে সেই মুহূর্ত, যে মূহূর্তে বান্দা তার রবের সবচেয়ে নিকটে চলে যায়। সালাত হচ্ছে সেই মূহূর্ত, যে মুহূর্তে বান্দার সাথে তার রবের কথােপকথন হয়। সালাত হচ্ছে সেই সময়, যে সময় বান্দা তার রবের কাছে সকল সমস্যার ঝুলি, বিপদের বিবরণ, চাওয়া-পাওয়ার বাসনা নিয়ে উপস্থিত হয়। এই সালাত হতে হয় মধুর। বান্দা তার সমস্ত প্রেম, সমস্ত ধ্যান এই সালাতেই ঢেলে দেবে। ( চলবে)

আল্লাহ আমাদের সবাইকে সুন্দর ভাবে সালাত আদায় করার তাওফিক দান করুন – আমীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button