World
Trending

অবশেষে বিসিএস ক্যাডার হইলাম

মারিয়া নিউজফিড স্ক্রল করছিলো।

মাঝে মাঝে কিছু পোস্টে লাইক কমেন্টও করছিলো!

হঠাৎ একটা পোস্টে এসে ওর হাতের আঙ্গুল থেমে যায়!

হাত দিয়ে ভালো করে চোখ কচলাতে থাকে!

ও ভুল দেখছেনাতো!

 

আশিকের একটা পোস্ট দেখেই মূলত ওর হৃদস্পন্দন বন্ধ হয়ে গেছে!

 

আশিকের পোস্টটা এরকম,” জীবনের সেরা আশাটা পূরণ হলো!

অবশেষে বিসিএস ক্যাডার হইলাম 😎…feeling satisfied ”

 

মারিয়া দেখলো পোস্টটা দেওয়া হয়েছে ৫ মিনিট আগে!

বারোটা রিয়্যাক্ট,যার মধ্যে ৬টা লাভ,৪টা ওয়াও আর দুইটা লাইক!

চারজন কমেন্ট করেছে!

আশিক শুধুমাত্র একজনের কমেন্টের রিপ্লাই দিয়েছে!

রাকিব নামের ছেলেটা কমেন্ট করেছে,কংগ্রাচুলেশনস মাম্মা!”

আশিক রিপ্লাই দিয়েছে,”থ্যাংকস মাম্মা 😊”

আবিরের নেক্সট রিপ্লাইটা হলো,” কোন সার্ভিসে পাইলি?”

আশিক রিপ্লাই দিয়েছে,”Administration 😊”

 

ব্যাস এতটুকুই!

আশিক আর কারো কমেন্টের রিপ্লাই দেয়নি!

মারিয়া ম্যাসেঞ্জারে গিয়ে দেখলো আশিক একটিভ ওয়ান মিনিট এগো!

মারিয়া খুব হতাশ হলো!

 

তারপরে আবার ভাবলো,একটু পরেই আবার ও আসবে নিশ্চয়ই!

মারিয়া পোস্টে প্রথমে একটা ওয়াও রিয়্যাক্ট দিলো!

বিশ মিনিট পরে সে রিয়্যাক্ট চেঞ্জ করে লাইক দিলো!

চল্লিশ মিনিট পরে লাইক চেঞ্জ করে লাভ রিয়্যাক্ট দিলো!

উঁহু, এর মাঝে আশিক একবারও অনলাইনে আসেনি!

.

আশিক নামের এই ছেলেটা একসময় মারিয়াকে খুব জ্বালাতন করতো! মারিয়ার কোন ইচ্ছাই ছিলোনা আশিকের সাথে প্রেম করার!

ও বরাবরই আশিককে এড়িয়ে চলতো!

কোনদিনই পাত্তা দেয়নি!

যখন আশিক খুব বাড়াবাড়ি শুরু করলো,তখন মারিয়াও একটু কঠোর হলো!

অবশেষে অনেক অনুনয় বিনয়ের কারণেই তখন আর আশিককে ব্লক দেওয়া হয়নাই!

ফ্রেন্ডলিস্টের এক কোণায় পড়ে থাকলো আইডিটা।

 

গত দুই বছর ধরে ঈদ,নববর্ষে আশিকই ওকে আগে উইশ করতো,আর মারিয়াও ওকে ছোট্ট করে একটা রিপ্লাই দিতো,ব্যাস এতোটুকুই!

এর বেশি আর কথা হয়নি এই দুইবছরে!

ক্যাম্পাসে মাঝে মাঝে দেখা হলেও কেউই কারো সাথে কথা বলতোনা!

 

কিন্তু,এখনকার পরিস্থিতিটা ভিন্ন!আশিক এখন বিসিএস ক্যাডার!ভাবতেই মারিয়ার শরীর শিউরে উঠছে!

আচ্ছা,আশিক কি ওকে এখন ইগনোর করবে?

নাহ,সেরকমটা হতেই পারেনা! ও জানে,ওর বান্ধবীদের কাছ থেকে আশিক নিয়মিতই ওর সম্পর্কে খোঁজখবর নেয়!

 

এদিকে এমনিতেও বাড়িতে মারিয়ার বিয়ের কথাবার্তা হচ্ছে! আম্মু একবার মারিয়ার কাছে শুনেওছে ওর নিজের কোন পছন্দ আছে কিনা!?

ও তখন কিছুই বলেনি!

আর আশিকতো কোনদিক থেকেই খারাপ নয়!শুধু হালকা একটু ভ্যাবলা টাইপের!

এই টাইপের স্বামীই বিয়ের জন্য মানানসই!

যখন যা হুকুম করবা,পালন করতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করবেনা!

.

তিন ঘণ্টা পরে এসেও মারিয়া দেখলো আশিক এখনো অনলাইনে আসেনি!

মারিয়ার কাছে ওর কোন কন্টাক্ট নাম্বারও নেই!

মারিয়া ওই পোস্টে কমেন্ট করলো,” Many many congratulations “!

 

রাত্রে এসেও দেখলো তখনো আশিক অনলাইনে আসেনি!

মারিয়া বুদ্ধি করে আশিকের ইনবক্সে একটা লাভ স্টিকার পাঠালো।

যেটায় ইনবক্স খুললেই চারদিকে লাভ উড়ে যাবে!

 

রিংটোন ভলিউম ফুল করে ডাটা কানেকশন অন করে রেখেই মারিয়া ঘুমিয়ে পড়লো!

 

রাত্রে আটবার তাকে উঠতে হয়েছে ফালতু কিছু মানুষের ম্যাসেজের কারণে!

মারিয়া এইটাকে কিছুই মনে করতেছেনা!

আশিকের জন্য সে এইটুকু ত্যাগতো স্বীকার করতেই পারে!

 

সেদিন সারাদিনও আশিক অনলাইনে আসলোনা!

মারিয়া আশিকের আইডি সী ফার্স্ট করে রাখছিলো গতকালই!

একেকজন কমেন্ট করতেছে আর ওর নিউজফিডে চলে আসতেছে স্ট্যাটাসটা!

মারিয়া গুণে দেখলো স্ট্যাটাসটিতে রিয়্যাক্ট দিয়েছে ১৩৬৭ জন!

আর কমেন্ট করেছে ১১৪৩ জন!

অথচ,আশিকের এর আগের পোস্টে মাত্র ১৩২টা রিয়্যাক্ট আর ৮টা কমেন্ট!

 

প্রচন্ড ক্ষোভ নিয়ে অনেকরাত পর্যন্ত জেগে থাকলেও আশিক আর অনলাইনে আসলোনা!

এরমাঝে ওকে সাতটা ম্যাসেজ দেওয়া হয়ে গ্যাছে মারিয়ার!

সেদিনের মত ক্ষান্ত দিয়ে ঘুমিয়ে পড়লো মারিয়া !

 

পরদিন ঘুম থেকে উঠতে ওর একটু লেট হলো!

মোবাইলে সময় দেখলো,”নয়টা পঁয়তাল্লিশ!”

 

 

This content by – Md Ahmed

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button